scorecardresearch
 

Lata Mangeshkar First Song : কেন লতা মঙ্গেশকরের প্রথম গান কখনও রিলিজ করেনি?

Lata Mangeshkar First Song: সারা দেশের চোখ আজ ভেজা। এই পৃথিবীকে চিরদিনের জন্য বিদায় জানালেন সংগীতশিল্পী লতা মঙ্গেশকর (Lata Mangeshkar)। লতা মঙ্গেশকরের মৃত্যুতে শোকাহত সবাই। লতা মঙ্গেশকর (Lata Mangeshkar) করোনায় আক্রান্ত ছিলেন।

লতা মঙ্গেশকর লতা মঙ্গেশকর
হাইলাইটস
  • সারা দেশের চোখ আজ ভেজা
  • এই পৃথিবীকে চিরদিনের জন্য বিদায় জানালেন সংগীতশিল্পী লতা মঙ্গেশকর
  • লতা মঙ্গেশকরের মৃত্যুতে শোকাহত সবাই

Lata Mangeshkar First Song: সারা দেশের চোখ আজ ভেজা। এই পৃথিবীকে চিরদিনের জন্য বিদায় জানালেন সংগীতশিল্পী লতা মঙ্গেশকর (Lata Mangeshkar)। লতা মঙ্গেশকরের মৃত্যুতে শোকাহত সবাই। লতা মঙ্গেশকর (Lata Mangeshkar) করোনায় আক্রান্ত ছিলেন। করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর তাঁকে মুম্বাইয়ের ব্রিচ ক্যান্ডি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আরও পড়ুন: তুলসী-জোয়ান চা ইমিউনিটি বাড়ায়, জানুন আর কী কী গুণ

৬ মাস বয়সে সঙ্গীত পছন্দ করেন? 
মঙ্গেশকর পরিবার বিশ্বাস করেন যে মুখে কথা ফোটার আগেই লতা তাঁর সংগীত প্রবণতার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। কথিত আছে, লতা মঙ্গেশকরের বাবা পণ্ডিত দীনানাথ মঙ্গেশকর বারান্দায় বসে সারেঙ্গি বাজাচ্ছিলেন, এমন সময় তাঁর চোখ পড়ে ছোট্ট লতার ওপর। 

৬ মাস বয়সী মেয়েটি মুখে এক মুঠো মাটি দিতে যাচ্ছিল। তিনি বেহালা তুলে নিলেন এবং ভালবাসার সঙ্গে তিরস্কার করতে চাইলেন। কিন্তু মেয়েটি যেভাবে সারেঙ্গির স্ট্রিং টেনে বাজাচ্ছিল ঠিক সেভাবে টেনে নিয়ে তাঁরা অবাক হয়ে গেল। বাবা চুপ করে রইলেন।

লতা মঙ্গেশকর চিরকাল বেঁচে থাকবেন মানুষের হৃদয়ে
যদিও লতা মঙ্গেশকর চলে গেছেন এই পৃথিবী থেকে। তবে তিনি এবং তাঁর সুন্দর গানগুলি সর্বদা মানুষের হৃদয়ে বেঁচে থাকবে। কারণ লতা মঙ্গেশকর তাঁর কণ্ঠের জাদুতে মানুষের হৃদয়ে এমন একটি বিশেষ জায়গা তৈরি করেছেন, যা কখনও মুছে ফেলা যাবে না।

৫ বছর বয়সে গান শুরু করেন
খুব কম মানুষই জানেন যে স্বরলিপি গায়িকা, লতা মঙ্গেশকর ৫ বছর বয়সে গান শুরু করেছিলেন। কিন্তু লতা মঙ্গেশকর যখন প্লেব্যাক গায়িকা হিসেবে ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে প্রবেশ করেন, তখন তাকে প্রত্যাখ্যান করা হয়। কারণ সেই সময়ে লতার কন্ঠস্বর খুব পাতলা বলে মনে করা হত।

লতা মঙ্গেশকরের প্রথম গান কেন মুক্তি পায়নি?
লতা মঙ্গেশকর হাজার হাজার গান গেয়েছেন। কিন্তু তার গাওয়া প্রথম গানটি কখনই মুক্তি পায়নি। এই গানের নাম ছিল নাচু ইয়া গাদে, খেলু শাড়ি মানি হাউস ভরি (Naachu Yaa Gade, Khelu Saari Mani Haus Bhaari)। 

গানটি ১৯৪২ সালে মারাঠি চলচ্চিত্র কিটি হাস্টলের জন্য সদাশিবরাও নেভরেকার দ্বারা রচিত হয়েছিল। গানটি লতার কন্ঠে ডাব করা হলেও ছবির ফাইনাল কাটে বাদ দেওয়া হয়। যে কারণে গানটি প্রকাশ করা সম্ভব হয়নি।

এর পরে, লতা মঙ্গেশকরের দ্বারা প্রকাশিত গানটি ছিল "নাটালি চৈত্রাচি নাভালাই" (Natali Chaitraachi Navalaai) যেটির সুর করেছিলেন দাদা চান্দেদকর। এই গানটি 1942 সালে মারাঠি ছবি পাহিলি মঙ্গলা-গৌর (Pahili Mangalaa-gaur)-এ তোলা হয়েছিল। এই ছবিতে লতা জিও একজন অভিনেতা হিসাবে একটি ছোট ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন।

এটি ছিল লতা মঙ্গেশরের প্রথম হিন্দি গান
এবার আসে লতার হিন্দি গানের যাত্রা, যেটি শুরু হয়েছিল ১৯৪৬ সালের আপকা সেবা চলচ্চিত্রে। এতে লতা গানটি গেয়েছিলেন, যার শুরু হয়েছিল, "পা লাগুন কর জোরি (Paa Lagoon Kar Jori)"।