scorecardresearch
 

Power Crisis in India : ৪০০ কয়লার রেকের জন্য বাতিল হল ২৪০ প্যাসেঞ্জার ট্রেন

Power Crisis in India: বিভিন্ন রাজ্যে বিদ্যুতের সংকটের মধ্যে সারা দেশে কমপক্ষে ৪০০টি রেক চলাচলের সুবিধার্থে ২৪০টির যাত্রীবাহী ট্রেন বাতিল করা হয়েছে। অনেক রাজ্য বিদ্যুৎ বিভ্রাটের সম্মুখীন হয়েছে।

দেশে কয়লা নিয়ে সমস্যা বাড়ছে (প্রতীকী ছবি) দেশে কয়লা নিয়ে সমস্যা বাড়ছে (প্রতীকী ছবি)
হাইলাইটস
  • বিভিন্ন রাজ্যে বিদ্যুতের সংকট
  • সারা দেশে কমপক্ষে ৪০০টি রেক চলাচলের সুবিধার্থে ২৪০টির যাত্রীবাহী ট্রেন বাতিল করা হয়েছে
  • গত বছর রেলওয়ে ৩৪৭টি কয়লা রেক চালিয়েছিল

Power Crisis in India: বিভিন্ন রাজ্যে বিদ্যুতের সংকটের মধ্যে সারা দেশে কমপক্ষে ৪০০টি রেক চলাচলের সুবিধার্থে ২৪০টির যাত্রীবাহী ট্রেন বাতিল করা হয়েছে।

গত বছর রেলওয়ে ৩৪৭টি কয়লা রেক চালিয়েছিল। এই বছরের ৪০০টি কয়লা রেকের সংখ্যা এ যাবতকালের সর্বোচ্চ। রেলওয়ে সূত্র জানিয়েছে।

বিদ্য়ুৎ বিভ্রাট
অনেক রাজ্য বিদ্যুৎ বিভ্রাটের সম্মুখীন হয়েছে। এর আগে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট বলেছিলেন যে ১৬টি রাজ্যে বিদ্যুতের চাহিদা বেড়েছে পারদের মাত্রা বেড়ে যাওয়ার কারণে। এবং প্রয়োজন অনুসারে কয়লা সরবরাহ করা হচ্ছে না। বিদ্যুৎ সরবরাহকে প্রভাবিত করছে। তিনি বলেন, এই পরিস্থিতি একটি জাতীয় সংকট।

আরও পড়ুন: ভারতে রোজ ২২৯ ব্যাঙ্কিং ফ্রড, ৭ বছরে উধাও ৬ লক্ষ কোটি টাকা, আপনার অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত? 

আরও পড়ুন: ইকো-পার্ক-চিড়িয়াখানা ৩০, জাদুঘর ৫০, বাকি জায়গায় খরচ কেমন?

দিল্লির পরিস্থিতি
দিল্লির বিদ্যুৎ মন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈন বলেছেন যে বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলিতে অবিলম্বে কয়লা সরবরাহ করা না হলে হাসপাতালের মতো প্রতিষ্ঠানগুলি বিদ্যুৎ বিঘ্নিত হতে পারে। দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল টুইট করেছেন: "দেশে বিদ্যুতের বিশাল ঘাটতি রয়েছে। এখনও পর্যন্ত আমরা দিল্লিতে কোনও ভাবে কাজ করেছি। সারা ভারতে পরিস্থিতি খুব গুরুতর। একসঙ্গে আমাদের শিগগিরি এর সমাধান খুঁজে বের করতে হবে। দ্রুত, এই সমস্যা মোকাবেলায় দৃঢ় পদক্ষেপ প্রয়োজন।"

আরও পড়ুন: নীল হটপ্যান্ট পরে বুর্জ খলিফায় শ্রীলেখা, ছবি VIRAL

দিল্লি সরকার বৃহস্পতিবার মেট্রো এবং হাসপাতাল সহ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় সম্ভাব্য বিদ্যুৎ বিঘ্নের বিষয়ে সতর্ক করেছে। ক্রমবর্ধমান কয়লার ঘাটতি থেকে সতর্কতাটি এসেছে।

এদিকে, দিল্লি সরকারের একটি বিবৃতিতে বলেছে: "দাদরি-২ এবং উনচাহার পাওয়ার স্টেশন থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহে বিঘ্নিত হওয়ার কারণে দিল্লি মেট্রো এবং দিল্লি সরকারি হাসপাতাল সহ অনেক প্রয়োজনীয় প্রতিষ্ঠানে ২৪ ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবরাহে সমস্যা হতে পারে।"

সে রাজ্যের বিদ্যুৎ মন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈন এখন কেন্দ্রীয় সরকারকে চিঠি দিয়েছেন যাতে জাতীয় রাজধানীতে বিদ্যুৎ সরবরাহকারী বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলিতে পর্যাপ্ত কয়লা সরবরাহ নিশ্চিত করার আহ্বান জানানো হয়।

জৈন বলেছেন যে দিল্লির বিদ্যুতের চাহিদার ২৫%-৩০% বর্তমানে এই কয়লা চালিত স্টেশনগুলি পূরণ করছে। "মানুষ যাতে বিদ্যুৎ বিভ্রাটের সম্মুখীন না হয় তা নিশ্চিত করার জন্য সরকার পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে," তিনি বলেছিলেন।

সত্যেন্দ্র জৈন বলেছেন, "এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলি দিল্লির বেশ কয়েকটি অংশে ব্ল্যাকআউট প্রতিরোধে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এবং গরমে দিল্লি মেট্রো রেল কর্পোরেশন, হাসপাতাল এবং বাড়িগুলিতে অবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য অপরিহার্য।"