scorecardresearch
 

Chanakya Niti: এই ৪ ভুল করলে হাতে টাকা থাকে না, যা বলেছেন চাণক্য

চাণক্যের মতে, কোনও ব্যক্তি জেনে-বুঝে বা অজান্তে এমন অনেক ভুল করে থাকেন, যে  কারণে ধন-সম্পদের দেবী লক্ষ্মী ক্রুদ্ধ হন। চঞ্চলা দেবী আর সেই ঘর থাকেন না। হাতে টাকা থাকে না। দারিদ্র্য ঘিরে ধরে সেই পরিবারকে। লাখো চেষ্টার পরও টাকা হাতে আসে না। চাণক্যর নীতিশাস্ত্র বলছে, এ জন্য দায়ী ৪ ভুল।  

চাণক্য নীতি। চাণক্য নীতি।
হাইলাইটস
  • ভারতের সর্বশ্রেষ্ঠ পণ্ডিত এবং অর্থনীতিবিদ হলেন আচার্য চাণক্য।
  • তাঁর রচিত নীতিশাস্ত্রে রয়েছে জীবনের নানা সমস্যার সমাধান।

ভারতের সর্বশ্রেষ্ঠ পণ্ডিত এবং অর্থনীতিবিদ হলেন আচার্য চাণক্য। তাঁর রচিত নীতিশাস্ত্রে রয়েছে জীবনের নানা সমস্যার সমাধান। চাণক্যের মতে, কোনও ব্যক্তি জেনে-বুঝে বা অজান্তে এমন অনেক ভুল করে থাকেন, যে  কারণে ধন-সম্পদের দেবী লক্ষ্মী ক্রুদ্ধ হন। চঞ্চলা দেবী আর সেই ঘর থাকেন না। হাতে টাকা থাকে না। দারিদ্র্য ঘিরে ধরে সেই পরিবারকে। লাখো চেষ্টার পরও টাকা হাতে আসে না। চাণক্যর নীতিশাস্ত্র বলছে, এ জন্য দায়ী ৪ ভুল।  

টাকার বেহিসেবি খরচ- আচার্য চাণক্যের মতে, যাঁরা অপ্রয়োজনীয় অর্থ ব্যয় করেন বা দেখনদারি করেন তাঁরা কখনও দেবী লক্ষ্মীর আশীর্বাদ পান না। অর্থনৈতিক সংকট আসলে তাঁরা আর উঠে দাঁড়াতে পারেন না।নিজেরাই নিজেদের ধ্বংসের পথ খুলে ফেলেন। চাণক্য বলেছেন, এই ধরনের লোকেরা দারিদ্র্য দশার জন্য নিজেরাই দায়ী হন। যে কোনও ব্যক্তিকে সবসময় দেখেশুনে অর্থ ব্যয় করা উচিত।

এঁটো বাসন- চাণক্যের মতে, ভুল করেও রান্নার উনুনের উপর এঁটো বাসন রাখা উচিত নয়। উনুনের কাছে বা পাশে এঁটো বাসন রাখলে মা লক্ষ্মী রেগে যান। এতে ঘরে সুখ-শান্তি থাকে না। কমতে থাকে প্রতিপত্ত-সম্মান। মা লক্ষ্মী বাড়ি থেকে চলে গেলে আর আর্থিকভাবে ব্যক্তি ঘুরে দাঁড়াতে পারেন না। 

সূর্যাস্তের পর ঝাঁট- সূর্যাস্তের পর ঘরে ঝাঁট দিলেও লক্ষ্মী রেগে যান। চাণক্য বলেছেন, সন্ধ্যায় কখনও ঘরে ঝাঁট দেওয়া উচিত নয়। আসলে ঝাঁটার হল দেবী লক্ষ্মীর প্রতীক। তাই সন্ধ্যায় ঝাঁট দেবেন না। যদি কোনও কারণে সন্ধ্যায় ঘর ঝাঁট দিতে হয়, তাহলে কাপড় দিয়ে সরিয়ে দিন বা মুছে নিন। একান্তই ঝাঁট দিতে আবর্জনা এক কোনে রেখে দিন। পরের দিন সকালে বাইরে বের করে দিন।

ব্যক্তির আচরণ- আচার্য চাণক্যের মতে,যাঁরা প্রবীণ, পণ্ডিত, নারী বা গরিবদের হয়রান করে,অপমান করেন, তাঁরা কখনও মা লক্ষ্মীর কৃপা পান না। যাঁরা অন্যের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করে তাঁদের প্রতি মা লক্ষ্মী সবসময় ক্রুদ্ধ থাকেন। যাঁরা বাবা-মা বা শিক্ষকদের সঙ্গে অকথ্য ভাষায় কথা বলেন,তাঁরা কখনও  মা লক্ষ্মীর আশীর্বাদ পান না। দেবীর কৃপা না থাকলে টাকাও হাতে আসে না।

আরও পড়ুন- বছরের এই দিনগুলিতে রুটি খেলে সর্বনাশ! সংসারে অশান্তি-বাধাবিঘ্ন