scorecardresearch
 

8th Pay Commission: এবার অ্যাক্রয়েড ফর্মুলায় বাড়বে কর্মীদের বেতন! হিসাব করে কীভাবে?

সপ্তম বেতন কমিশনের সুপারিশগুলি বাস্তবায়িত হয়েছিল ২০১৬ সালে। তার পর থেকে কেটে গিয়েছে ৬ বছর। শুরু হয়েছে অষ্টম বেতন কমিশনের জল্পনা। তবে কেন্দ্র জানিয়ে দিল, এমন কোনও ভাবনাই নেই।

কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের বেতন বাড়বে অ্যাক্রয়েড ফর্মুলায়? কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের বেতন বাড়বে অ্যাক্রয়েড ফর্মুলায়?
হাইলাইটস
  • সপ্তম বেতন কমিশনের সুপারিশগুলি বাস্তবায়িত হয়েছিল ২০১৬ সালে।
  • অষ্টম বেতন কমিশন আসছে না, জানাল কেন্দ্র।

অষ্টম বেতন কমিশন নিয়ে চলছে বিবিধ জল্পনা। তা চালু হবে না বলে স্পষ্ট করে দিল কেন্দ্রীয় সরকার। সংসদে একটি প্রশ্নের জবাবে কেন্দ্রীয় অর্থ প্রতিমন্ত্রী পঙ্কজ চৌধরী সাফ জানিয়ে দেন, অষ্টম বেতন কমিশন নিয়ে সরকারের কোনও ভাবনাচিন্তা নেই। বরং অ্যাক্রয়েড ফর্মুলার ভিত্তিতে কর্মীদের বেতন ও পেনশনের পর্যালোচনা হতে পারে। কী এই ফর্মুলা?         

সপ্তম বেতন কমিশনের সুপারিশগুলি বাস্তবায়িত হয়েছিল ২০১৬ সালে। তার পর থেকে কেটে গিয়েছে ৬ বছর। শুরু হয়েছে অষ্টম বেতন কমিশনের জল্পনা। তবে কেন্দ্র জানিয়ে দিল, এমন কোনও ভাবনাই নেই। তবে কর্মীদের বেতন বাড়বে। সেটা হবে নতুন ফর্মুলায়। বিশেষজ্ঞরাও মনে করছেন,বেতন কমিশনের চেয়ে আলাদা পথ বিবেচনা করা উচিত। পঙ্কজ চৌধরী জানান,কেন্দ্রীয় সরকারী কর্মচারীদের বেতন, পেনশন এবং ভাতা থেকে আলাদা করে ভাবা হচ্ছে। এখনই অষ্টম বেতন কমিশন নিয়ে ভাবনাচিন্তা নেই।  বেতন, ভাতা এবং পেনশন পর্যালোচনার জন্য বেতন কমিশন গঠনের প্রয়োজন হবে না। বরং সময়ে সময়ে পে-স্কেল পরিবর্তন করা যেতে পারে অ্যাক্রয়েড ফর্মুলার ভিত্তিতে।

অ্যাক্রয়েড ফর্মুলা কী? 

শোনা যাচ্ছে, কর্মচারীদের বেতন ও পেনশন পর্যালোচনায় Aykroyd ফর্মুলা নিয়ে আলোচনা চলছে। এই ফর্মুলার সাহায্যে কর্মচারীদের বেতন, মুদ্রাস্ফীতি, জীবনযাত্রার ব্যয় এবং কর্মক্ষমতা যুক্ত হবে। এর ভিত্তিতে বাড়বে বেতন।

সপ্তম কমিশনে বিচারপতি মাথুর সুপারিশ করেছিলেন অ্যাক্রয়েড ফর্মুলা অনুসারে বেতন কাঠামো নির্ধারণ করা যেতে পারে। এতে জীবনযাত্রার খরচও বিবেচনায় আনা হয়। এই ফর্মুলা দিয়েছিলেন ওয়ালেস রুডেল অ্যাক্রয়েড। তাঁর অভিমত ছিল, সাধারণ মানুষের কাছে দু'টি জিনিস গুরুত্বপূর্ণ- খাদ্য এবং বস্ত্র। খাবার ও পোশাকের দাম বাড়লে কর্মচারীদেরও বর্ধিত বেতন দিতে হবে। যদিও অর্থমন্ত্রকের এক আধিকারিকের দাবি, এমন কোনও ফর্মুলা এখনও বিবেচনায় নেই।  

সপ্তম বেতন কমিশনের সুপারিশে কেন্দ্রীয় সরকার কর্মীদের ন্যূনতম বেতন ৭০০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৮ হাজার টাকা করা হয়। বিচারপতি মাথুর সুপারিশ করেছিলেন, মূল্য সূচক অনুসারে প্রতি বছর কেন্দ্রীয় কর্মচারীদের বেতন পর্যালোচনা করা উচিত।

 আরও পড়ুন- এক বছরেই ৫ গুণ রিটার্ন, আদানির ৩ কোম্পানির শেয়ারে মালামাল