scorecardresearch
 

আপনাদেরও দিল্লি আসতে হবে, মমতা ও তৃণমূল নেতাদের হুঁশিয়ারি বিজেপি সাংসদের

পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের আক্রমণ ও নিশানা করা যদি তৃণমূল বন্ধ না করে, তাহলে তাঁদের মুখ্যমন্ত্রী ও সাংসদরা যেন মনে রাখেন, তাঁদেরও দিল্লি আসতে হবে। দিল্লি থেকে হুঁশিয়ারি দিলেন বিজেপি নেতা প্রবেশ সিং বর্মা।

ভাঙচুর বিজেপি কর্মীর অফিস ভাঙচুর বিজেপি কর্মীর অফিস
হাইলাইটস
  • বিজেপি নেতার দিল্লি যাওয়া নিয়ে হুঁশিয়ারি তৃণমূলকে
  • তৃণমূলের সন্ত্রাসে নিন্দা বিজেপি মুখপাত্রর
  • তৃণমূল নেতৃত্বকে দায়িত্ব নেওয়ার আর্জি

 

পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের আক্রমণ ও নিশানা করা যদি তৃণমূল বন্ধ না করে, তাহলে তাঁদের মুখ্যমন্ত্রী ও সাংসদরা যেন মনে রাখেন, তাঁদেরও দিল্লি আসতে হবে। দিল্লি থেকে হুঁশিয়ারি দিলেন বিজেপি নেতা প্রবেশ সিং বর্মা। দিল্লি গেলে যে রাজ্যের তৃণমূল নেতা-সাংসদদের বিরুদ্ধে কি পদক্ষেপ করবেন, তা স্পষ্ট না করলেও ফুল বিছিয়ে যে স্বাগত জানাবেন না, তা তাঁর হুঁশিয়ারিতেই পরিষ্কার। মঙ্গলবার আবার বিজেপির কেন্দ্রীয় মুখপাত্র সম্বিত পাত্র রাজ্যে ভোট পরবর্তী হিংসার তীব্র নিন্দা করেছেন। 

ভোট পরবর্তী সন্ত্রাস পশ্চিমবঙ্গে

বাংলাতে ভোট গণনার পর তৃণমূল বিপুল ব্যবধানে জয়ী হয়। তারপর থেকেই বিভিন্ন জায়গায় হিংসার খবর মিলেছে। বিজেপি কর্মীদের ওপর আক্রমণের অভিযোগ উঠেছে তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের বিরুদ্ধে। পার্টি অফিস ভাঙচুর, কর্মীদের মারধর, ভয় দেখানো, বাড়িতে অগ্নি সংযোগ সহ একাধিক অভিযোগ উঠেছে। বিভিন্ন জায়গা থেকে একাধিক বিজেপি কর্মীর মৃত্যুর ঘটনা সামনে এসেছে।

বিজেপি নেতৃত্বের উদ্বেগ

যা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বিজেপি নেতৃত্ব। রাজ্যে নির্বাচনে বিজয়ী তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অবশ্য হিংসাত্মক ঘটনা থেকে তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের বিরত থাকতে বলেছেন। যদিও তাঁর বক্তব্যে কাজ হচ্ছে না বলেই প্রমাণ প্রমাণ হচ্ছে বিভিন্ন ঘটনায়।

প্রবেশ সিং বর্মার বক্তব্য

পিটিআইকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বিজেপি নেতা প্রবেশ সিং বর্মা। তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদদের হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, মুখ্যমন্ত্রী এবং তৃণমূলের বিধায়করা মনে রাখবেন, তাঁদেরও দিল্লি আসতে হবে। তাই তারা এটাকে সতর্কতামূলক বাণী হিসেবে তাঁরা যেন নেন। দিল্লির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সাহেব সিং বর্মার ছেলে প্রবেশ বলেন, নির্বাচনে হারজিত হয়। নির্বাচন শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই পুরনো তিক্ততা ভুলে যাওয়া উচিত। সকলকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করতে হবে। উনি বলেন, তৃণমূলের গুন্ডারা বাংলাতে জেতার পরে বিজেপি কার্যকর্তাদের নিশানা বানিয়েছেন।

কর্মীদের পাশে থাকতে রাজ্যে কৈলাস বিজয়বর্গীয়

প্রবেশ সিং আরও বলেছেন, তৃণমূলের গুন্ডারা নির্বাচনে জিতে আমাদের কর্মকর্তাদের খুন করা শুরু করেছেন। গাড়ি-ঘোড়া ভাঙচুর শুরু করেছেন। বাড়িতে প্রবেশ করে আগুন লাগাচ্ছে। এর আগে বিজেপির বাংলার প্রভারী কৈলাস বিজয়বর্গীয়জিও অভিযোগ করেছেন। বাংলায় ভোটের পরে তৃণমূলের গুন্ডা দ্বারা বিজেপি কর্মীরা আক্রান্ত হচ্ছেন বলে কৈলাস বিজয়বর্গীয় এই সময়ে বাংলাতেই রয়েছেন। নির্বাচনের পর ঘরের ময়নাতদন্ত এবং আত্মসমীক্ষা করার প্রয়োজন রয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, বিজেপির কেন্দ্রীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা দলীয় কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলেছেন। তাঁদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। মঙ্গলবারই তাঁর কলকাতায় আসার কথা। বিজয়বর্গীয় যে দাবি করেছেন, নির্বাচনের পর চারজন বিজেপির কার্যকর্তা খুন হয়েছেন। চার হাজার এর বেশি ঘর জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে।

সম্বিত পাত্রের দাবি

বিজেপি মুখপাত্র বলেন, এর আগে পশ্চিমবঙ্গে এমন ভোট পরবর্তী সন্ত্রাস দেখিনি। অত্যন্ত নিন্দনীয় ও উদ্বেগজনক। এটা বন্ধ হওয়া দরকার। তৃণমূল নেতৃত্বকে উদ্য়োগ নিতে হবে।