scorecardresearch
 

সীতাকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য, কল্যাণের মাথা কাটলে ৫কোটি টাকা দেওয়ার ঘোষণা মহন্ত পরমহংসের

সীতাকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের জেরে এবার কল্যাণের বিরুদ্ধে হুমকি দিলেন মহন্ত পরমহংস। তিনি জানালেন, তদন্ত না হলে, ওই সাংসদের মাথা যিনি কাটবেন তাকে ৫ কোটি টাকা তিনি দেবেন। অপরদিকে, অনশন শুরু করেছেন আরেক সাধু। যদিও এই বিষয়ে কল্যাণ এখনও কোনও মুখ খোলেননি।

হুমকি দিলেন মহন্ত পরমহংস। ফাইল ছবি হুমকি দিলেন মহন্ত পরমহংস। ফাইল ছবি
হাইলাইটস
  • সীতাকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের জের
  • কল্যাণের মাথা কাটলে ৫কোটি টাকা দেওয়ার ঘোষণা
  • অনশন শুরু আরেক সাধুর

সীতাকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের জেরে এবার কল্যাণের বিরুদ্ধে হুমকি দিলেন মহন্ত পরমহংস। তিনি জানালেন, তদন্ত না হলে, ওই সাংসদের মাথা যিনি কাটবেন তাকে ৫ কোটি টাকা তিনি দেবেন। অপরদিকে, অনশন শুরু করেছেন আরেক সাধু। যদিও এই বিষয়ে কল্যাণ এখনও কোনও মুখ খোলেননি।

কী বলেছেন ওই মনন্ত

প্রয়াগরাজ থেকে অযোধ্যা সাধু-সন্ন্যাসীদের একটা বড় অংশ প্রতিবাদ শুরু করে দিয়েছেন তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে। মহন্ত পরমহংস জানিয়েছেন, কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ে বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু না হল, ওই সাংসদের মাথা যিনি কাটবেন তাকে ৫ কোটি টাকা তিনি দেবেন। সস্তার রাজনীতির জন্য দেবতাদের নাম বদনাম করা হচ্ছে। এর বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নেওয়া উচিত। অন্যদিকে প্রয়াগরাজের স্বামী ফলাহরি মহারাজ, কল্যাণের বিরুদ্ধে অনশন শুরু করে দিয়েছেন। তাঁর দাবি, ওই সাংসদের যতক্ষণ না কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে, ততক্ষণ তিনি অনশন চালিয়ে যাবেন। 

আরও পড়ুন, হাথরস নির্যাতিতার সঙ্গে সীতার তুলনা! কল্যাণের বিরুদ্ধে দায়ের FIR

বিতর্কিত মন্তব্য কল্যাণের

প্রসঙ্গত দলীয় সভায় কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় মন্তব্য করেন, "সীতা রামের কাছে গিয়ে বলেছিলেন, ভাগ্যিস রাবণ আমাকে হরণ করে নিয়ে গেছিল। যদি তোমার চ্যালাগুলো আমাকে হরণ করে নিয়ে যেতো, তাহলে আমার উত্তরপ্রদেশের হাথরসের ধর্ষিতা মেয়েটির মতো অবস্থা হত।" তৃণমূল সাংসদের এই মন্তব্যের পরেই শুরু হয়েছে বিতর্ক। ইতিমধ্যে হাওড়া জেলায় বিজেপি কল্যাণের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেছেন। সাংসদের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে বিভিন্ন সংগঠনও। বেশ কিছু জায়গায় বিক্ষোভও চলেছে।

সরব হয়েছে বিভিন্ন সংগঠনও

দিন কয়েক আগেই এবিষয়ে মুখ খোলেন আরেক তৃণমূল সাংসদ অপরূপা পোদ্দার। তিনি বলেন, মা সীতা আমাদের কাছে আদর্শ, উনি দেবী।  কল্যাণদার মন্তব্য নিয়ে রাজনৈতিক নেতারা ভুলভাবে পরিবেশন করছেন এটা ঠিক না। আমি ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। দেশের মধ্যে ঠাকুর-দেবতা নিয়ে এমন রাজনীতি বন্ধ হোক। ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করার অভিযোগে কল্যাণের বিরুদ্ধ সরব হয়েছে বিভিন্ন সংগঠনও। তারাও এই সাংসদের উপযুক্ত শাস্তির দাবি করেছেন।  কিন্তু এখনও পর্যন্ত কল্যাণ এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করেননি।