scorecardresearch
 
 
লাইফস্টাইল

বিচ্ছেদ চেয়েছিলেন অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী, স্বামীর এই আচরণে বদলে ফেললেন সিদ্ধান্ত

সম্পর্কের
  • 1/10

সম্পর্কের মধ্যে উত্থান -পতন হওয়া স্বাভাবিক, কিন্তু কখনও কখনও এমন কিছু ঘটে যা বিবাহ বিচ্ছেদের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। একজন মহিলা নিজের সম্পর্কের জটিলতার কথা জানিয়ে বলেন কেন তিনি অন্তঃসত্ত্বা জানার পর বিবাহবিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। যেহেতু তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, তাই হঠাৎ করেই তাঁর স্বামীর আচরণও বদলে যায়।
 

মহিলার
  • 2/10

মহিলার তখন ২৭ বছর বয়স। তাঁর স্বামীর বয়স ২৯। দুজনেরই বিয়ে হয়েছে ৫ বছর। মহিলা লেখেন, 'আমি সবসময় যে রোম্যান্সের কল্পনা করেছি তার অভাব রয়েছে। আমাদের সম্পর্কের মধ্যে একসঙ্গে থাকার মতো কিছুই অবশিষ্ট ছিল না। যেন কোনও রুমমেটের সঙ্গে আছি, যার সঙ্গে মাঝে মাঝে দেখা হয়। '
 

আমার
  • 3/10

'আমার স্বামী আমার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করত তা নয়, কিন্তু আমি আমার বিবাহিত জীবনে খুব একাকী বোধ করতে লাগলাম। আমাদের এটি প্রেম করে বিয়েই ছিল এবং বিয়ের আগে আমার স্বামী আশ্চর্যজনক ছিলেন। তিনি সবসময় আমাকে একজন খুব সুন্দর এবং ভালো মানুষ হিসেবেই মনে করতেন। সবচেয়ে বড় কথা হলো আমার বাবাও ওকে খুব পছন্দ করতেন এবং এজন্যই আমি ওকে বিয়ে করেছি।
 

কিছু
  • 4/10

'কিছু মাস খুব ভালো ছিল, তারপর ধীরে ধীরে আমাদের বিবাহিত জীবন খারাপ হতে শুরু করে। গত কয়েক বছরে আমি ওর সঙ্গে কথা বলার অনেক চেষ্টা করেছি, কিন্তু ওর ওপর চাপ দিইনি। আমার আচরণ এমন নয় যে আমি বারবার কোনও বিষয়ে কথা বলি, তাই আমি চেষ্টা করাও ছেড়ে দিয়েছি।
 

চার মাস
  • 5/10

'চার মাস আগে আমি জানতে পারি যে আমি গর্ভবতী। আমি আমার সন্তানকে এমন পরিবেশে বড় করতে চাইনি যেখানে ভালোবাসা নেই। আমি কোনো সম্পর্ককে মজা হিসেবে দেখতে চাইনি। গত কয়েক বছরে আমি অনুভব করেছি, এই সম্পর্ক আমার সন্তানের জন্য ভালো হবে না। অবশেষে আমি এই সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করলাম।
 

আমি
  • 6/10

'আমি বিবাহবিচ্ছেদের কথা ভাবছিলাম, কিন্তু সেসময় আমার স্বামীর আচরণ দেখে আমি হতবাক হয়ে গেলাম। সে হঠাৎই বদলে গেল। তিনি আমার ছোট ছোট বিষয়গুলিকে মনোযোগ দিতে শুরু করলেন। আমার যত্ন নিতে শুরু করলেন। গত কয়েকদিন ধরে সে আমার প্রতি ভালোবাসা দেখাতে শুরু করেছে। আমার মনে হতে লাগল যেন আমি অন্য কাউকে বিয়ে করেছি।
 

আমি বুঝতে
  • 7/10

'আমি বুঝতে পারছি না যে তার আচরণের এই পরিবর্তন চিরকালের জন্য নাকি আমার গর্ভাবস্থা পর্যন্ত। আমি ডিভোর্সের সিদ্ধান্ত আপাতত স্থগিত রেখেছি। তিনি নেটিজেনদের জিজ্ঞেস করেন তাঁর এখন কী করা উচিত?
 

মহিলার
  • 8/10

মহিলার পোস্টে অনেকেই তাদের অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছেন। একজন লেখেন, যখন আমি আমার প্রাক্তন স্বামীর সঙ্গে থেরাপিস্টের কাছে যেতাম, তিনি পরামর্শ দিয়েছিলেন সম্পর্ককে ৬ মাস সময় দেওয়া উচিত। তা স্থায়ী কিনা বোঝা যাবে।
 

আরেকজন
  • 9/10

আরেকজন বলেন, 'আমি যখন গর্ভবতী ছিলাম, আমার স্বামীও একই অবস্থায় ছিলেন। যখন আমি তার থেকে বিচ্ছেদ হওয়ার কথা বললাম, ওর আচরণ সম্পূর্ণ বদলে গেল। কয়েক মাস পর সে আবার একই ট্র্যাকে চলে এল। সন্তান নেয়ার তিন মাস পর, আমি তাকে ছেড়ে দিলাম কারণ আমি আমার সন্তানকে এমন খারাপ পরিবেশে বড় করতে চাইনি যা তার সন্তানকেও ভালোবাসা দিতে পারে না। এজন্য আপনার সবসময় বিচ্ছেদের বিকল্প খোলা রাখা উচিত।
 

আরও
  • 10/10

আরও একজনের বক্তব্য, নিশ্চয়ই তোমার ভগ্নিপতি তাঁকে বলেছেন যে তুমি বিচ্ছেদের কথা ভাবছ। এটি জানার পর সে পরিবর্তন করার চেষ্টা করছে। আপনার দুজনেরই বিশেষজ্ঞের কাছে কাউন্সেলিংয়ের জন্য যাওয়া উচিত কিনা এই পরিবর্তন শুধুমাত্র কয়েক মাসের জন্য নাকি চিরকালের জন্য। আপনাকে এই বিষয়গুলো সম্পর্কে পরিষ্কার হতে হবে।