scorecardresearch
 

Beer Belly Fat Loss : এবার আর বিয়ার খেলেও বাড়বে না ভুঁড়ি, রইল ছিপছিপে থাকার ৫ উপায়

বিয়ারে থাকা অতিরিক্ত ক্যালোরির জন্য ভুঁড়ি (Beer Belly Fat) বেড়ে যায়। পেটের চারিদিকে জমে যায় মেদ। মূলত পুরুষদেরই এই সমস্যা বেশি দেখা যায়। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, বিয়ার খাওয়ার ফলে পেট বেড়ে গেলে তা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে। এমনকী বিয়ার বেলি কার্ডিওভাসকুলার রোগের মতো গুরুতর সমস্যা তৈরি হতে পারে। তবে এই অতিরিক্ত মেদ থেকে মুক্তি পাওয়ার কিছু উপায় রয়েছে। চলুন জেনে নেওয়া যাক।

প্রতীকী ছবি প্রতীকী ছবি
হাইলাইটস
  • বিয়ারে বাড়ে পেটের মেদ
  • হতে পারে শারীরিক সমস্যা
  • জেনে নিন ভুঁড়ি কমানোর উপায়

লাগাতার বিয়ার খেলে বেড়ে যায় ওজন। এমনকী বিয়ারে থাকা অতিরিক্ত ক্যালোরির জন্য ভুঁড়িও (Beer Belly Fat) বেড়ে যায়। পেটের চারিদিকে জমে যায় মেদ। মূলত পুরুষদেরই এই সমস্যা বেশি দেখা যায়। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, বিয়ার খাওয়ার ফলে পেট বেড়ে গেলে তা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে। এমনকী বিয়ার বেলি কার্ডিওভাসকুলার রোগের মতো গুরুতর সমস্যা তৈরি হতে পারে। তবে এই অতিরিক্ত মেদ থেকে মুক্তি পাওয়ার কিছু উপায় রয়েছে। চলুন জেনে নেওয়া যাক। 

কম মদ্যপান - বিয়ার বেলি (Beer Belly) কমাতে প্রথমেই কম করতে হবে বিয়ার খাওয়ার পরিমান। কারণ বিয়ার বেশি খেলে শরীরে অতিরিক্ত ক্যালোরি যায়। এক্ষেত্রে পুরুষেরা দিনে ২টি ও মহিলারা দিনে ১টি ড্রিঙ্ক নিতে পারেন। কারণ মনে রাখবেন, মদ ফ্যাট বার্ন প্রসেসকে ধীর করে দেয়। খিদে বাড়িয়ে দেয়, ফলে মানুষ বেশি খাবার খেতে শুরু করেন। আর ভাবনা-চিন্তার ক্ষমতাও কমিয়ে দেয়। ফলে মানুষ অনেক সময় অস্বাস্থ্যকর খাবার খেয়ে ফেলেন, যার জেরে শরীরে প্রভাব পড়ে। 

পুষ্টিতে গুরুত্ব - বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সবসময় খাবারে ফল ও সবজি রাখা উচিত। তার ফলে শরীরে পর্যাপ্ত ভিটামিন ও অন্যান্য পুষ্টিগুণ সরবরাহ বজায় থাকে। আর এর ফলে মেদও ঝরে। 

ফাইবার যুক্ত খাবার - বিয়ার বেলি কমানোর আরও একটি উপায় হল ফাইবার যুক্ত খাবার খাওয়া। এর ফল শুধু পেটের মেদই কমে না, হৃদরোগ ও টাইপ ২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকিও কম হয়ে যায়। তাছাড়া ফাইবার যুক্ত খাবারে ক্যালোরিও কম থাকে। 

রোজ শরীরচর্চা - নিয়মিত হালকা শরীরচর্চা পেটের চর্বি কমাতে অত্যন্ত কার্যকরী। এর জন্য প্রতিদিন ৩০ মিনিট বা সপ্তাহে মোট ১৫০ মিনিট শরীরচর্চা করতে পারেন। 

কমপক্ষে ৭ ঘণ্টা ঘুম - সাম্প্রতিক এক সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, যাঁরা পর্যাপ্ত ঘুমান তাঁদের তুলনায় যাঁরা পর্যাপ্ত ঘুমান না তাঁদের ১১ শতাংশ ভিসারাল ফ্যাট বেশি। তাই প্রতিদিন অন্তত ৭-৮ ঘণ্টা ঘুমান। তবে প্রয়োজেন চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

আরও পড়ুনসোশ্যাল মিডিয়ায় অশ্লীল ছবি, প্রেমিকের ওপর ভয়ঙ্কর বদলা প্রেমিকার