scorecardresearch
 

School Reopening Demand: বাকি সব খুললেও স্কুল-কলেজ কেন নয়? প্রশ্ন অভিভাবকদের

করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তেই ফের বন্ধ হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। করোনা গ্রাফ বাড়লেই কোপ এসে পড়ছে শিক্ষায়। এর আগে প্রায় দেড় বছর স্কুল, কলেজের মুখ দেখেনি পড়ুয়ারা। যে কারণে বেড়েছে স্কুলছুটের সংখ্যা। মানসিক অবসাদের শিকার হয়েছে অনেক পড়ুয়ারা।

প্রতীকী ছবি  প্রতীকী ছবি
হাইলাইটস
  • করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তেই ফের বন্ধ হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান
  • এর আগে প্রায় দেড় বছর স্কুল, কলেজের মুখ দেখেনি পড়ুয়ারা
  • ইতিমধ্যে পুনরায় স্কুল, কলেজ খোলার দাবিতে জনস্বার্থ মামলাও দায়ের হয়েছে কলকাতা হাইকোর্টে

করোনার (COVID) তৃতীয় ঢেউ (Third Wave) আছড়ে পড়তেই ফের বন্ধ হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। করোনা গ্রাফ বাড়লেই কোপ এসে পড়ছে শিক্ষায়।এর আগে প্রায় দেড় বছর স্কুল, কলেজের মুখ দেখেনি পড়ুয়ারা। যে কারণে বেড়েছে স্কুলছুটের সংখ্যা। মানসিক অবসাদের শিকার হয়েছে অনেক পড়ুয়াই। পাশাপাশি, শিক্ষা গ্রহণের জায়গায় তৈরি হচ্ছে বিস্তর ফাঁক, যা পূরণে বেগ পেতে হবে ভবিষ্যতে। সমাজের একাধিক মহল থেকে বারবার প্রশ্ন উঠে আসছে উৎসব, উদযাপন, মেলা, নির্বাচন সব চললে স্কুল কেন খুলতে পারে না? ইতিমধ্যে পুনরায় স্কুল, কলেজ খোলার দাবিতে জনস্বার্থ মামলাও দায়ের হয়েছে কলকাতা হাইকোর্টে। 

স্কুল, কলেজ খোলা প্রসঙ্গে যা মতামত উঠে আসছে

ICDS সঙ্গে যুক্ত কর্মী স্বাতী চ্যাটার্জির বক্তব্য, অবিলম্বে স্কুল খোলা উচিত। বাচ্চাদের এত দিন ধরে আটকে রাখলে তাদের মানসিক অবসাদ দেখা যায়। পাশাপাশি, বাড়ি বসে তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও কমে যাচ্ছে। শিক্ষার ক্ষতি হলে অনেক বড় ক্ষতি হবে, যা পূরণ করার জায়গা নেই। পাশাপাশি বেড়েছে স্কুল ছুটের সংখ্যা, আমরা জানি না কতজন আবার স্কুল খুললে ফিরবে। ফলে গোটা সমাজে এর প্রভাব পড়বে।

পাশাপাশি এক সরকারি স্কুলের শিক্ষিকা এবং অভিভাবক হিসেবে মধুশ্রী সেনগুপ্ত জানাচ্ছেন , এবার ভাবনা চিন্তা করার সময় এসেছে। অনির্দিষ্টকালের জন্য বাচ্চাদের বসিয়ে রাখা একেবারেই উচিত হচ্ছে না। সুস্থ জীবন থেকেও বঞ্চিত হচ্ছে তারা। এমনকি বাড়ির বাইরে বেরোতে গেলে তারা অস্বস্তি অস্বস্তি বোধ করছে। যারা ইতিমধ্যে টিকা পেয়েছে তাদের নিয়ে স্কুল চালু করা যেতেই পারে। তবে অবশ্যই সতর্কতা অবলম্বন করা হোক। তাঁর ১০ বছরের কন্যা অনুশাও চায় আর অনলাইন নয় এবার স্কুলে গিয়ে ক্লাস করতে। 

রাজ্যের বিরোধী দলগুলিও স্কুল, কলেজ খোলার পক্ষেই মত দিচ্ছে। এমনকি, ওয়ার্ল্ড ব্যাঙ্কের এক বিশেষজ্ঞও স্কুল না খোলার কারণকে যৌক্তিক বলে মনে করছেন না। স্কুল, কলেজ খোলা নিয়ে একই মত একাংশ চিকিৎসক ও শিক্ষাবিদদের।

শুক্রবারই ফের স্কুল চালু করার জন্য তৎপর হয় রাজ্য। রাজ্য স্কুল শিক্ষা দফতরও অবিলম্বে স্কুল খুলতে চায় বলে জানা যায়। শিগগিরি এ বিষয়ে আলোচনায় বসতে পারে নবান্ন। স্কুল খোলা ও পড়ুয়াদের টিকাকরণের দাবিতে আন্দোলন শুরু করে এআইডিএসও-সহ বেশ কিছু সংগঠন।