scorecardresearch
 

Tax Saving Tips : বছরে আয় ১০ লক্ষ টাকা হলেও এক পয়সাও Income Tax নয়? দেখুন কীভাবে সম্ভব

Tax Saving Tips: আয়কর (Income Tax) বিভাগের নিয়ম অনুসারে, বছরে ২.৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয়ে কোনও ট্য়াক্স দিতে হয় না। আড়াই লক্ষ টাকা থেকে ৫ লক্ষ টাকা আয়ে ৫ শতাংশ ট্যাক্স দিতে হয়। আর ৫-১০ লক্ষ টাকা আয়ে বছরে ২০ শতাংশ ট্যাক্স দিতে হয়।

একটু হিসেব করলে আয়কর বাঁচানো যেতে পারে (প্রতীকী ছবি) একটু হিসেব করলে আয়কর বাঁচানো যেতে পারে (প্রতীকী ছবি)
হাইলাইটস
  • বছরে আয় ৫ লক্ষ টাকার সামান্য বেশি
  • আর তাই আয়কর দিতে হয়
  • হামেশাই এমন কথা বলে থাকেন মানুষজন

Tax Saving Tips: বছরে আয় ৫ লক্ষ টাকার সামান্য বেশি। আর তাই আয়কর (Income Tax) দিতে হয়। হামেশাই এমন কথা বলে থাকেন মানুষজন। মানে যাঁদের আয় ৫ লক্ষ টাকার বেশি আর কী।

নতুন বছর পড়ে গিয়েছে। মানুষ ট্যাক্স (Income Tax) বাঁচানোর জন্য নতুন নতুন রাস্তা খোঁজার চেষ্টা করছেন। আপনি ২০২২ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত ট্যাক্স বাঁচানোর জন্য অনেক কিছুই করার কথা ভাবছেন।

আরও পড়ুন: কাঁচা বাদাম গানে মুগ্ধ The Kiffness, ভুবনের সঙ্গে কাজ করতে চান

আরও পড়ুন: শীতের ইমিউনিটি বুস্টার নলেন গুড়-তিলের নাড়ু, রয়েছে আরও ফায়দা

ইনকাম ট্যাক্স বাঁচানোর টিপস
আয়কর বিভাগ (Income Tax)-এর নিয়ম অনুসারে, বছরে ২.৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয়ে কোনও ট্য়াক্স দিতে হয় না। আড়াই লক্ষ টাকা থেকে ৫ লক্ষ টাকা আয়ে ৫ শতাংশ ট্যাক্স (Income Tax) দিতে হয়। আর ৫-১০ লক্ষ টাকা আয়ে বছরে ২০ শতাংশ ট্যাক্স দিতে হয়। বছরে ১০ লক্ষ টাকার বা তার বেশি আয় করলে ৩০ শতাংশ টাকা ট্যাক্স দিতে হবে, এমনই নিয়ম।

এই স্ল্যাব দেখে সাফ বোঝা যাচ্ছে, ১০ লক্ষ টাকা বা তার থেকে বেশি কামাইয়ে ৩০ শতাংশ ট্যাক্স লাগবে। তবে আপনি চাইলে এক টাকাও ট্যাক্স দিতে হবে না। আপনার স্যালারি ১০.৫০ লক্ষ টাকা হলেও আপনি বিনিয়োগ এবং আয়কর ছাড়ের সুযোগ পাবেন। এক টাকাও ট্যাক্স দিতে হবে না। আর সে জন্য আপনাকে সেভিংস আর খরচে তালমিল রাখতে হবে। 

আরও পড়ুন: সাদা মনোকিনিতে Ananya Pandey, কার 'জালে' ধরা দিলেন!

আরও পড়ুন: রাত-বিরেতে ঘুঙুরের শব্দ, ধূপধুনোর গন্ধও, শান্তিপুরের সেই বাড়িতে যাবেন?

যদি আপনার বার্ষিক বেতন সাড়ে ১০ লক্ষ টাকা হয়, তা হলেও আপনার দেওয়ার কথা ৩০ শতাংশ ট্যাক্স (Income Tax)। তবে কিছু জিনিস মাথায় রাখলে তা দিতে হবে না। 

১. স্ট্যান্ডার্ড ডিডাকশন হিসেবে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত ছাড় পাওয়া যাবে। এটা আপনার কামাই কমিয়ে দিল। মানে এখন আপনি ১০ লক্ষ টাকার স্ল্যাবে চলে এলেন। 

২. আপনি ৮০সি (80C)-থেকে দেড় লক্ষ টাকা বাঁচাতে পারেন। ইপিএফ (EPF), পিপিএফ (PPF), ইএলএসএস (ELSS), এনএসসি (NSC)-তে লগ্নি করতে হবে। এর পাশাপাশি আপিন দুই শিশুর টিউশন ফি হিসেবে দেড় লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয়কর বা ইনকাম ট্যাক্স ছাড় পেতে পারেন। আপনার দেড় লক্ষ টাকা আয় কমে গেল। মানে এখন বছরে আয় দাঁড়াল সাড়ে ৮ লক্ষ টাকা। 

আরও পড়ুন: শিশুকে ঠান্ডার হাত থেকে বাঁচাতে নজর দিন এই ৫ দিকে, চনমনে থাকবে সন্তান

আরও পড়ুন: ভারতে রোজ ২২৯ ব্যাঙ্কিং ফ্রড, ৭ বছরে উধাও ৬ লক্ষ কোটি টাকা, আপনার অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত?

৩. আপনি ন্যাশনাল পেনশন স্কিম (এনপিএস বা NPS)-এ বছরে ৫০ হাজার টাকা রাখেন, তা হলে সেকশন ৮০সিসিডি (১বি)-এর হিসেবে আপনাকে অতিরিক্ত ৫০ হাজার টাকা ইনকাম ট্যাক্স বাঁচানোর ক্ষেত্রে কাজে দেবে। মানে এখন মোট আয় কমে দাঁড়াল ৮ লক্ষ টাকা।

৪. হোম লোন নেওয়া থাকলে অতিরিক্ত ২ লক্ষ টাকা খরচ করা যেতে পারে। ইনকাম ট্যাক্স (Income Tax)-এর ২৪বি (24B) অনুসারে ২ লক্ষ টাকার সুদে ট্যাক্স ছাড় পাওয়া যাবে। মানে এখন বেতন দাঁড়াচ্ছে ৬ লক্ষ টাকা। 

৫. ইনকাম ট্যাক্স (Income Tax)-এর সেকশন ৮০ডি অনুসারে মেডিক্যাল পলিসিতে আপনি ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত ট্যাক্স বাঁচাতে পারেন। হেলথ ইনসুরেন্স আপনি, আপনার স্ত্রী আর সন্তানের নামে থাকা দরকার। আপনি প্রিভেন্টিভ হেলথকেয়ার চেক আপের খরচ ধরে হেলথ ইনসুরেন্স প্রিমিয়ামের জন্য ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত ডিডাকশন ক্লেম করতে পারেন। এর পাশাপাশি আপনার মা-বাবা সিনিয়র সিটিজেন হলে তাঁদের জন্য হেলথ ইনসুরেন্সে আপনি অতিরিক্ত ৫০ হাজার টাকায় ছাড় পেতে পারেন। তার মানে এখন আপনার আয় দাঁড়াল ৫ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা।

৬. আপনি কোনও সংস্থাকে চাঁদা বা দান করলে ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত ছাড় পেতে পারেন। চাঁদা বা দানের রশিদ জমা করলে আপনি ৮০জি (80G)-তে ছাড় পাবেন। তা হলে আপনার আয় দাঁড়াল ৫ লক্ষ টাকা।

৭. আয়কর (Income Tax) নিয়ম বলছে, ৫ লক্ষ টাকায় ১২,৫০০ টাকা (আড়াই লাখে ৫ শতাংশ) ট্যাক্স দিতে হবে। আয়করের সেকশন ৮৭এ বলছে, ১২,৫০০ টাকার রিবেট পাওয়া যেতে পারে। মানে আপনাকে এখন কোনও ট্যাক্স দিতে হবে না। ৫ লক্ষ টাকা আয়ের স্ল্যাবে শূন্য ট্যাক্স দিতে হবে।