scorecardresearch
 

Malaysia : মালেশিয়ায় ছাগলের সঙ্গে সেক্স করার অভিযোগ ৬০ বছরের এক ব্যক্তির, শুনে আদালত যা বলল

Malaysia: পুলিশ জানাচ্ছে, আওয়াজ শুনে ওই মহিলা ছুটে যান সেখানে। আর তিনি তখন দেখেন, ওই ব্যক্তি সেখানে দাঁড়িয়ে। তিনি আসতেই পালিয়ে যান অভিযুক্ত ব্যক্তি।

ছাগলের সঙ্গে সেক্সের অভিযোগ (প্রতীকী ছবি) ছাগলের সঙ্গে সেক্সের অভিযোগ (প্রতীকী ছবি)
হাইলাইটস
  • মালেশিয়ায় এক চাঞ্চল্যকর অভিযোগ উঠেছে
  • সেখানে এক ব্যক্তি ছাগলের সঙ্গে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছেন বলে খবর মিলেছে
  • তাকে হাজির করা হয়েছিল আদালতে

Malaysia: মালেশিয়ায় এক চাঞ্চল্যকর অভিযোগ উঠেছে। সেখানে এক ব্যক্তি ছাগলের সঙ্গে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছেন বলে খবর মিলেছে। আর তারপর সেই ছাগলটি মারা গিয়েছে বলে অভিযোগ। তাকে হাজির করা হয়েছিল আদালতে। তার জামিন দিতে রাজি হয়নি আদালত। এই ঘটনার খবর পাওয়ার পর চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

জুলাই মাসের ঘটনা
অভিযুক্ত ওই ব্যক্তির নাম বিধুর শেরি হাসান। তার বয়স ৬০ বছর। চলতি বছরের ২৭ জুলাই ওই ঘটনা ঘটেছিল বলে জানা গিয়েছে। তখন ওই ব্যক্তি ছাগলের সঙ্গে সেক্স করেছেনয এমনটাই অভিযোগ। ২৫ নভেম্বর অভিযুক্তের জামিন নাকচ করে দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন: Talking Duck : কথা বলছে হাঁস! সন্ধান পেলেন ডাচ বিজ্ঞানী 

ধরা পড়েছিল হাতেনাতে
স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, তাকে ধরা হয়েছিল হাতেনাতে। ওই ছাগলটির মালিক ৪৫ বছরের এক মহিলা। তিনি তাঁর বাড়ির পেছনে প্রাণীটির আজব আওয়াজ শুনতে পান। তখন তাঁর খটকা লাগে।

পুলিশ জানাচ্ছে, আওয়াজ শুনে ওই মহিলা ছুটে যান সেখানে। আর তিনি তখন দেখেন, ওই ব্যক্তি সেখানে দাঁড়িয়ে। তিনি আসতেই পালিয়ে যান অভিযুক্ত ব্যক্তি। 

আরও পড়ুন: টিম ইন্ডিয়ার মেনুতে 'হালাল মাংস' নিয়ে বিতর্ক, কী জিনিস সেটা?

মারা গিয়েছে ছাগলটি
এরপর তিনি দেখেন, তাঁর ছাগলটি মারা গিয়েছে। খুব কষ্ট পান তিনি এই ঘটনায়। মালেশিয়ার আদালত হাসানকে জামিন দিতে অস্বীকার করে। তার ওপর মামলা চালানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বিচারক নুরুল মরধিয়া মহম্মদ রেডজা অভিযুক্তের গ্রেফতারির সময় হাসানের একটি টি-শার্ট এবং একটি প্যান্ট আদালতে পেশ করার নির্দেশ দেন।

আরও পড়ুন: হবু স্ত্রীর স্তন-কোমরের মাপ জানতে চেয়ে বিজ্ঞাপন, বিতর্ক তুঙ্গে

হাসানের আইনজীবী আদালতে তার জন্য জামিনের আর্জি জানান। যার বিরোধিতা করেন সরকারি আইনজীবী খদিজা আমির হামজাদা। আদালত সরকারি আইনজীবীর পক্ষেই রায় দেয়। আর অভিযুক্তের জামিন নামঞ্জুর করে। 

তাকে ২৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়। ফলে আপাতত তার ঠাঁই গারদের ফিছনে। মনে করা হচ্ছে তার ২০ বছরের জেল হতে পারে।

সেইসঙ্গে বিশাল অঙ্কের আর্থিক জরিমানাও করা হতে পারে। মামলার পরের শুনানি ডিসেম্বরের ২৪ তারিখে হবে। দেখা যাক, ওই ব্যক্তির জন্য কী অপেক্ষা করছে।