scorecardresearch
 
উত্তরবঙ্গ

সম্ভার আছে সমঝদার নেই, মন খারাপ আলিপুরদুয়ারের ফুলফলাদির

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 1/16

অযত্নের শিকার নার্সারি শিল্প। করোনা সংক্রমণের জেরে ডুয়ার্সে চা, এবং পর্যটন শিল্পের পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত পুস্প,ফল, চারা গাছ শিল্প। 
 

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 2/16

লকডাউনের জেরে দেখা নেই প্রতিবেশী দেশ ভুটান এবং উত্তর-পূর্ব ভারতের একাধিক রাজ্যের পাইকারি ক্রেতাদের। ফলে সমস্যা বাড়ছে।

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 3/16

আলিপুরদুয়ার এক ব্লকের বাইরিগুড়ি নার্সারির জন্য বিখ্যাত। সেখানে এখন মন খারাপের ছাপ। গেলেই দেখা যাবে ফুলের বাগান গুলিতে বাহারি রং-বেরং এর ফুল ফুটে থাকলেও ক্রেতার দেখা নেই।

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 4/16

ফলের বাগানগুলোতেও একই চিত্র৷ গাছে গাছে হরেক রকমের ফল ঝুলে থাকলেও বিক্রি করার মতো খদ্দের নেই চাষিদের। বাগানের চারা গাছগুলোর একই দশা। বিভিন্ন প্রজাতির চারা গাছ ধিরে ধিরে বড় হয়ে উঠছে। অথচ ক্রেতার দেখা নেই।
 

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 5/16

আলিপুরদুয়ার শহর লাগোয়া এই বাইরিগুড়ি গ্রামের প্রায় ১০০ টি পরিবারের রুজিরোজগার নির্ভর করে এই ফুল,ফল, চারা গাছ চাষ করে। স্থানীয় চাষিরা দীর্ঘদিনের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এই ফুল ও ফলের চাষকে একটি  পূর্নাঙ্গ শিল্প রুপে গড়ে তুলেছেন।

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 6/16

তবে গত প্রায় দেড় বছর ধরে করোনার জেরে এই শিল্প পরিকাঠামো ধ্বংসের মুখে। ফি-বছর এই এলাকার ফুল চাষিদের থেকে প্রতিবেশী দেশ ভুটান এবং উত্তর-পূর্ব ভারতের মেঘালয়  আসাম, মণিপুর, নাগাল্যান্ডে দুই থেকে তিন কোটি টাকার ফুল রপ্তানি করা হতো।

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 7/16

তবে চিত্রটা পাল্টে গেছে করোনা সংক্রমণের পর থেকেই। ২০২০ সালে মাত্র ১০ লাখ টাকার ফুল, ফল, চারা গাছ কিনেছে ভুটান। অন্যদিকে উত্তর-পূর্ব ভারতে বড়জোর ৫ লাখ টাকার ফুল রপ্তানি করা হয়েছে।

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 8/16

ফুল চাষিদের দাবি মহাজনের থেকে চড়া সুদে ঋণ নিয়ে বিপাকে পড়েছেন। ফুলের বাগান গুলোতে ফুল ফুটে থাকলেও ক্রেতা আসছেন না ফুল কিনতে।

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 9/16

বাগানগুলোতে চারদিকে ফুটে রয়েছে জারবেরা, রজনীগন্ধা, চন্দ্রমল্লিকা, গাঁদা ফুল, সহ অন্যান্য নানা রকমের ফুল। খদ্দেরের অভাবে সমস্ত ফুল নষ্ট হচ্ছে বাগানেই। 

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 10/16

ফলের বাগান গুলোতে নষ্ট হচ্ছে পেয়ারা, আম, লিচু, বেদানা। সম্ভার তো রয়েছে, কিন্তু সমঝদার নেই।

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 11/16

অন্যদিকে বিয়ে, অন্নপ্রাশন সহ অন্যান্য সামাজিক অনুষ্ঠান বন্ধ থাকায় মাথায় হাত এই চাষিদের। 
 

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 12/16

এই এলাকায় বেশ কিছু ফুল চাষির পরিবার অর্ধাহারে দিন গুজরান করছেন। আয় নেই তাই উপায়ও নেই।

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 13/16

রেশনের চাল, আটার উপর নির্ভর করছে ক্ষতিগ্রস্ত এই ফুল চাষিদের পরিবারের দু বেলার আহার।
 

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 14/16

স্থানীয় ফুল চাষি অর্জুন সরকার বলেন ভুটান এবং উত্তর-পূর্ব ভারতের একাধিক রাজ্যের পাইকারি ক্রেতারা আমাদের থেকে ফুল আমদানি করে নিয়ে যেত। কিন্তু লকডাউনের জেরে এখন আমাদের এই শিল্প ধ্বংসের মুখে।
 

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 15/16

আরেক ফুলচাষি গৌরাঙ্গ দাস বলেন, আমরা সরকারের দ্বারস্থ হব। সরকারি ভাবে আমাদের ঋণ না দিলে আমাদের আত্মহত্যা করা ছাড়া অন্য কোন পথ নেই।

করোনার জেরে অযত্নের শিকার
  • 16/16

কিন্তু সরকারি সাহায্য মিলবে কী! এলাকার সব বিধানসভা বিরোধীদের দখলে। পাঁচে পাঁচ হয়েছে বিজেপির। ত্রাণ থেকে অন্য বিষয়, সাহায্য মিলছে না বলে দাবি বিধায়কদের। এক্ষেত্রে অন্যথা হবে কী! জানা নেই আম জনতার।