scorecardresearch
 

বিনামূল্যে করোনা তাড়াবে আলিপুরদুয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের স্যানিটাইজার "সেভ ডুয়ার্স"

পঠন পাঠন বন্ধ। তাই সময় নষ্ট না করে আলিপুরদুয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক, শিক্ষাকর্মী ও ছাত্রছাত্রীরা মিলে তৈরি করে ফেললেন স্যানিটাইজার। তা এখন বাজারে বিনামূল্যে বিলি করবেন তাঁরা। নাম দিয়েছেন "সেভ ডুয়ার্স"।

করোনা মোকাবিলা করবে সেভ ডুয়ার্স করোনা মোকাবিলা করবে সেভ ডুয়ার্স
হাইলাইটস
  • বিশ্ববিদ্যালয়েই তৈরি হচ্ছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার
  • করোনা মোকাবিলায় বিলি হবে বিনামূল্যে
  • পড়ে পাওয়া ছুটি কাজে লাগিয়েই বাজিমাত

"সেভ ডুয়ার্স" নামে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে বাজারে আসতে চলেছে আলিপুরদুয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের তৈরি হ্যান্ড স্যানিটাইজার।

আলিপুরদুয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক এবং ছাত্র-ছাত্রীদের তৈরি আ্যলকোহল বেসড হ্যান্ড স্যানিটাইজার এই "সেভ ডুয়ার্স" তৈরির খবরে উচ্ছ্বসিত জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে শুরু করে প্রশাসন এবং সাধারণ মানুষ।

প্রাথমিকভাবে এই হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়া,অধ্যাপক সহ অন্য স্টাফরা নিজেদের মধ্যে পরিক্ষামূলক ভাবে ব্যবহার করবেন। এরপর এই স্যানিটাইজার জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের হাতে তুলে দেবে আলিপুরদুয়ার বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এমনকি জেলা শহরের সাধারণ মানুষের মধ্যেও সরাসরি এই স্যানিটাইজার বিনামূল্যে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বিলি করবেন।

আলিপুরদুয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ডঃ মহেন্দ্রনাথ রায় বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের পঠন পাঠন বন্ধ থাকায় আমরা সিন্ধান্ত নিই। হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করব। তাই এদিন থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের ল্যাবে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি শুরু করা হয়। আমাদের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক এবং কয়েকজন ছাত্র-ছাত্রী  এই হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করছেন। আগামী দিনে আমরা হ্যান্ড গ্লাভসও তৈরি করবো। 

আলিপুরদুয়ার বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গিয়েছে, করোনার জন্য আগামী ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত স্কুল, কলেজের পঠন-পাঠন বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে শিক্ষক, অধ্যাপকদের যথারীতি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আসতে হবে বলেও জানানো হয়েছে। সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী আলিপুরদুয়ার বিশ্ববিদ্যালয়েও পঠন-পাঠন বন্ধ। কিন্তু মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এসে সিন্ধান্ত নেন তারা এই করোনা পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াবেন।

কিন্তু কীভাবে? তা নিয়ে অধ্যাপকরা নিজেদের মধ্যে আলোচনা করেন। পরে সিদ্ধান্ত নেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের ল্যাবটারিতে তারা হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করবেন। ওই স্যানিটাইজার তারা নিজেদের ব্যবহারের জন্য রাখার পাশাপাশি সাধারণ মানুষ এবং স্বাস্থ্য দপ্তরকেও বিলি করবেন। এর পরেই বুধবার থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের ল্যাবে এই হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি শুরু করেন অধ্যাপকরা। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপিকা ডঃ রিঙ্কু চক্রবর্তী বলেন, আমরা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন মেনেই অ্যালকোহল বেসড হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করছি। এই হ্যান্ড স্যানিটাইজারের নাম রাখা হয়েছে 'সেভ ডুয়ার্স।' অধ্যাপক বিকাশ ডাকুয়া বলেন, আমাদের হ্যান্ড স্যানিটাইজারে ৭৫ শতাংশ অ্যালকোহল আছে।এ ছাড়াও মেশানো হয়েছে অ্যালোভেরা ও নিমের সংমিশ্রণ। যা এই হ্যান্ড স্যানিটাইজারকে করে তুলেছে আরও কার্যকরী।

 

 
; ; ;