scorecardresearch
 

Howrah Jagatballavpur Electrocution : হাওড়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে প্রাণ হারাল সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী, এলাকায় তুমুল ক্ষোভ

Howrah Jagatballavpur Electrocution: রাজ্য়ে ফের বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যুর ঘটনা ঘটল। এবার হাওড়ার জগৎবল্লভপুরে। মঙ্গলবার ওই ঘটনায় মারা গিয়েছে সপ্তম শ্রেণীর এক ছাত্রী। ওই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থার বিরুদ্ধে মানুষ ক্ষুব্ধ। তার মৃত্যু গোটা এলাকায় নেমে আসে শোকরে ছায়া।

হাওড়ায় ফের বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যুর ঘটনা ঘটল (প্রতীকী ছবি) হাওড়ায় ফের বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যুর ঘটনা ঘটল (প্রতীকী ছবি)
হাইলাইটস
  • রাজ্য়ে ফের বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যুর ঘটনা ঘটল
  • এবার হাওড়ার জগৎবল্লভপুরে
  • মঙ্গলবার ওই ঘটনায় মারা গিয়েছে সপ্তম শ্রেণীর এক ছাত্রী

Howrah Jagatballavpur Electrocution: রাজ্য়ে ফের বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যুর ঘটনা ঘটল। এবার হাওড়ার জগৎবল্লভপুরে। মঙ্গলবার ওই ঘটনায় মারা গিয়েছে সপ্তম শ্রেণীর এক ছাত্রী। ওই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থার বিরুদ্ধে মানুষ ক্ষুব্ধ। তার মৃত্যু গোটা এলাকায় নেমে আসে শোকরে ছায়া।  

আগেও পরপর একই ঘটনা
এর আগে পরপর বেশ কয়েকটি এমন ঘটনা ঘটেছে। এবং তার জেরে মানুষের মৃত্যু হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারা প্রশাসনের ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন। এবং তাঁরা অভিযোগ করেছিলেন, তাদের গাফিলতির কারণেই এই ঘটনা। রাজ্য প্রশাসনের তরফ থেকে কিছু ব্য়বস্থা নেওয়া হয়েছিল। 

পড়তে যাচ্ছিল ওই ছাত্রী
পুলিশ এবং স্থানীয় সূত্রে খবর, হাওড়া জগৎবল্লভপুর এলাকায় ঘটনা। সেখানে একটি ল্যাম্পপোস্টে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয় ওই ছাত্রী। আহত অবস্থায় তাকে নিয়ে যাওয়া হাসপাতালে কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। সেখানকার চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে।

পা পিছলে যায়
ওই ছাত্রীর নাম তৃষা। এদিন সন্ধে সাতটা নাগাদ ওই ঘটনা ঘটেছে। জগতবল্লভপুরের নরেন্দ্রপুর পশ্চিমপাড়ায় এই ঘটনা। সপ্তম শ্রেণির ওই ছাত্রী পড়তে যাচ্ছিল বলে জানা গিয়েছে। তখন কোন কারণে তার পা পিছলে যায়। এবং সেই ছিটকে পড়ে বিদ্যুতের খুঁটির কাছে।

আরও পড়ুন: WhatsApp-এ ভুলেও এই কাজ নয়, হতে পারে জেল

আরও পড়ুন: গুগল পে ১ মিনিটে দেবে ১ লক্ষ টাকার পার্সোনাল লোন, রইল পদ্ধতি

আরও পড়ুন: অস্কারে সেরা সিনেমা কোনটা? বাছতে টুইটে ভোটের সুযোগ

ল্যাম্পপোস্টের তার খোলা ছিল। সেখানেই বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে যায় সে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে নিয়ে যাওয়া হয় আমতা আমতা গ্রামীণ হাসপাতাল। 

প্রবল ক্ষোভ স্থানীয়দের
এই ঘটনার পর ক্ষোভে ফেটে পড়েন এলাকার মানুষজন। তাদের অভিযোগ কোনও নজরদারি নেই বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থার। তা থাকলে এমন হত না। পরিবারের সদস্যদের একই অভিযোগ করেছেন। তাঁদের অভিযোগ, ল্যাম্পপোস্ট থেকে তার ছেঁড়া অবস্থায় পড়েছিল। কেউ সারাই করেনি। তা করলে এমন ঘটনা ঘটত না। 

উদ্ধার করে পুলিশ
পরে সেখানে যায় জগৎবল্লভপুর থানার পুলিশ। তারা ছাত্রীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু হয়েছে এবং তদন্ত শুরু করেছে। 
এরপর বিদ্যুৎ সংস্থার কর্মীদের সেখানে যান। বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে সারাইয়ের কাজ করেন। পরে সংযোগ দিয়ে দেওয়া হয়।