scorecardresearch
 

Bardhaman Maoists Demand Money : 'ছেলের মাথার দাম ৫ লাখ,' জয় বজরংবলি লেখা মাও-চিঠিতে টাকার দাবি

Bardhaman Maoists Demand Money: মাওবাদী (Maoist)-দের পক্ষ থেকে মায়ের কাছে টাকা চেয়ে  বাড়িতে এল চিঠি। তুমুল আতঙ্কিত পরিবার। বর্ধমান (Bardhaman)-এর ভাতার (Bhatar) থানা এলাকার বনপাসে।

কৃষ্ণা হাজরা এবং তাঁর ছেলে অয়ন। আতঙ্কে রয়েছেন তাঁরা কৃষ্ণা হাজরা এবং তাঁর ছেলে অয়ন। আতঙ্কে রয়েছেন তাঁরা
হাইলাইটস
  • ছেলের মাথার দাম ৫ লাখ
  • মাওবাদীদের পক্ষ থেকে মায়ের কাছে টাকা চেয়ে বাড়িতে এল চিঠি
  • বর্ধমানের ভাতার থানা এলাকার বনপাসে

Bardhaman Maoists Demand Money: ছেলের মাথার দাম ৫ লাখ । মাওবাদী (Maoist)-দের পক্ষ থেকে মায়ের কাছে টাকা চেয়ে  বাড়িতে এল চিঠি। তুমুল আতঙ্কিত পরিবার। বর্ধমান (Bardhaman)-এর ভাতার (Bhatar) থানা এলাকার বনপাসে।

রাতে চিঠি
পুলিশ এবং স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, পাঁচ লাখ টাকা চেয়ে হাজরা পরিবারকে চিঠি মাওবাদী (Maoist)-দের। চিন্তায় পরিবার। শনিবার রাত সাড়ে ১০ নাগাদ বাড়ির ছোট ছেলে অয়ন হাজরা সদর দরজা বন্ধ করতে গিয়ে দেখে একটি খাম  পরে রয়েছে। খাম খুলে দেখেন চিঠি। ওপরে লেখা রয়েছে, "জয় বজরং বলি, আমরা মাওবাদী (Maoist)। আপনার গৃহকর্তা ৪০-৫০ লাখ টাকা রেখে গিয়েছেন।"

আরও পড়ুন: কাঁচা বাদাম এবার ভোজপুরিতে, রাকেশ মিশ্রার ভিডিও VIRAL

"সেই টাকা থেকে আমাদের ৫ লাখ টাকা দেবেন,না হলে বাড়ির ছোট ছেলে অসুবিধায় পড়বে। আর এই টাকাটি আমবোনা গ্রামের বেল তলায় এনে রাখবেন সেখান থেকে সংগ্রহ করে নেওয়া হবে।"

maoist letter bardhaman bhatar
সেই চিঠি

এই ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব বর্ধমান জেলার ভাতার থানা অন্তর্গত বনপাস পঞ্চায়েতের আমবোনা গ্রামের। চিঠি পেয়ে হাজরা পরিবারের ছোট ছেলে ভাতার থানায় দ্বারস্থ হন। পুলিশ বিষয়টি নিয়ে আশ্বাস দিয়েছেন হাজরা পরিবারকে বলে জানান অয়ন। তবে মাওবাদীর পক্ষ থেকে এমন চিঠি পেয়ে আতঙ্কিত হাজরা পরিবার।

ছেলেরা দাবি
রবিবার অয়ন হাজরা দাবি করেন, "শনিবার রাতে সওয়া দশটা নাগাদ দরজা লাগাতে যাই। সে সময় সেখানে একটা কাগজ দেখতে পাই। বুঝতে না পেয়ে কাগজটা তুলি। দেখি কী লেখা রয়েছে। সেখানে ওই লেখা। টাকার দাবি করা হয়েছে। আপনার বাবা ৪০-৫০ লক্ষ টাকা রেখে গিয়েছেন। তার মধ্যে ৫ লক্ষ টাকা আমাদের দিতে হবে।"

তিনি আরও দাবি করেন, "আমার মা-কে লেখা চিঠিটা। না দিলে প্রচন্ড ক্ষতি হবে। প্রচন্ড আতঙ্কে ভুগছিলাম। চিটি পাওয়ার পর পুলিশ খুব তাড়াতাড়ি আসে। আশ্বস্থ করে গিয়েছে। ভয়ের কিছু নেই, পাশে আছি, থাকব।"

তিনি বলেন, "কী যে রহস্য আছে, তা জানি না। কে যে করল, তা কাউকে সন্দেহ করতে পারছি না। এর আগে জ্যাঠার দরজায় একই রকম ভাবে চিঠি পড়েছিল। ৩-৪ বছর আগে একই ভাবে জ্যাঠাকে চিঠি দিয়েছিল। আমবনা বেলতলায় সেই টাকা দিতে বলেছে।"

আতঙ্কে মা
তাঁর মা কৃষ্ণা হাজরা জানান, লেখা রয়েছে জয় বজরং বলি। আপনার স্বামী অনেক টাকা দিয়ে গিয়েছেন। আপনি ৫ লক্ষ টাকা ফেলে দিয়ে যান। না হলে ছোট ছেলের ক্ষতি করে দেব। 

তাঁর দুই ছেলে। বড় ছেলে থাকেন কোচিতে। ছোট ছেলে এখানে থাকেন। তাঁরা আতঙ্কে রয়েছেন। তবে পুলিশ আশ্বস্থ করেছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। তবে এই চিঠি সত্যিই মাওবাদীদের পক্ষ থেকে দেয়া হয়েছে কিনা, তা নিয়ে কিন্তু সন্দিহান রয়েছে পরিবার কে দিয়েছে চিঠি তা জানা যাচ্ছে না সঠিকভাবে। তবে একটা আতঙ্ক রয়েছে। কারণ বাড়িতে রয়েছে দুই প্রবীণ মানুষ। তাঁরা যথেষ্টই চিন্তিত এবং আতঙ্কিত এই ঘটনায়।