scorecardresearch
 

DHFL Scam CBI Search : দেশের সবথেকে বড় ব্যাঙ্ক জালিয়াতি, ৩৪ হাজার কোটি টাকা 'লুঠ' দুই ভাইয়ের

DHFL Scam CBI Search: দেশের সবথেকে বড় জালিয়াতি। আর সেই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত জায়গায় অভিযান চালাল সেন্ট্রাল ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন বা সিবিআই। মহারাষ্ট্রে ৩৪,৬১৪ কোটি টাকার ব্যাঙ্ক জালিয়াতির মামলায় ডিএইচএফএল (DHFL)- এর প্রোমোটার কপিল ওয়াধওয়ান, ধীরাজ ওয়াধাওয়ান, ব্যবসায়ী সুধাকর শেঠি এবং অন্যান্যদের সঙ্গে যুক্ত ১২টি স্থানে অনুসন্ধান চালায়। ইন্ডিয়া টুডে জানতে পেরেছে, এটা দেশের সবচেয়ে বড় ব্যাঙ্ক জালিয়াতি। যার পরিমাণ নীরব মোদী মামলার প্রায় তিনগুণ।

ডিএইচএফএল মামলায় বড়সড় অভিযান সিবিআইয়ের (প্রতীকী ছবি) ডিএইচএফএল মামলায় বড়সড় অভিযান সিবিআইয়ের (প্রতীকী ছবি)
হাইলাইটস
  • দেশের সবথেকে বড় জালিয়াতি
  • আর সেই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত জায়গায় অভিযান চালাল সেন্ট্রাল ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন বা সিবিআই
  • মহারাষ্ট্রে ৩৪,৬১৪ কোটি টাকার ব্যাঙ্ক জালিয়াতির মামলা

DHFL Scam CBI Search: দেশের সবথেকে বড় জালিয়াতি। আর সেই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত জায়গায় অভিযান চালাল সেন্ট্রাল ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন বা সিবিআই। মহারাষ্ট্রে ৩৪,৬১৪ কোটি টাকার ব্যাঙ্ক জালিয়াতির মামলায় ডিএইচএফএল (DHFL)- এর প্রোমোটার কপিল ওয়াধওয়ান, ধীরাজ ওয়াধাওয়ান, ব্যবসায়ী সুধাকর শেঠি এবং অন্যান্যদের সঙ্গে যুক্ত ১২টি স্থানে অনুসন্ধান চালায়। ইন্ডিয়া টুডে জানতে পেরেছে, এটা দেশের সবচেয়ে বড় ব্যাঙ্ক জালিয়াতি। যার পরিমাণ নীরব মোদী মামলার প্রায় তিনগুণ।

কাদের নাম রয়েছে অভিযুক্তদের তালিকায়?
এফআইআর অনুসারে, দেওয়ান হাউজিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন লিমিটেড (ডিএইচএফএল)-এর তৎকালীন প্রধান ম্যানেজিং ডিরেক্টর কপিল ওয়াধওয়ান, তৎকালীন ডিরেক্টর ধীরজ ওয়াধওয়ান, ব্যবসায়ী সুধাকর শেঠি এবং অন্যান্য অভিযুক্তরা ইউনিয়ন ব্যাঙ্কের এবং ১৭টি ব্যাঙ্কের কনসোর্টিয়ামকে প্রতারণা করার জন্য একটি অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র করেছিল।

আরও পড়ুন: 'বউকে দরজার খিল দিয়ে মাথা থেঁতলে খুন করেছি,' তারকেশ্বরে থানায় স্বামী

আরও পড়ুন: ওয়ার্নের মৃত্যু কীভাবে? ময়না তদন্তের রিপোর্ট থাই পুলিশের

আরও পড়ুন: ৩ বছরে ৯ টাকা হয়েছে ১০০, চোখধাঁধানো রিটার্ন দিয়ে এই স্টক

ক্ষতির পরিমাণ
“অপরাধের ষড়যন্ত্রের অভিযুক্ত কপিল ওয়াধাওয়ান এবং অন্যান্যরা কনসোর্টিয়াম ব্যাঙ্কগুলিকে ৪২,৮৭১ কোটি টাকার বিশাল ঋণ মঞ্জুর করতে বলেছিল। এবং ডিএইচএফএল-এর খাতা মিথ্যা করে তহবিলের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ অপব্যবহার করেছে।

এবং অসাধুভাবে খেলাপি ঋণ পরিশোধ করেছে। কনসোর্টিয়াম ব্যাঙ্কগুলোর বৈধ বকেয়া এবং এর ফলে কনসোর্টিয়াম ঋণদাতাদের ৩৪,৬১৫ কোটি টাকার অন্যায়ভাবে ক্ষতি হয়েছে, "সিবিআই এফআইআরে এ কথা বলা হয়েছে।

সিবিআই ডিএইচএফএল, কপিল ওয়াধওয়ান, ধীরাজ ওয়াধাওয়ান, স্কাইলর্ক বিল্ডকন প্রাইভেট লিমিটেড লিমিটেড, দর্শন ডেভেলপারস প্রাইভেট লিমিটেড, সিগটিয়া কনস্ট্রাকশন বিল্ডার্স প্রাইভেট লিমিটেড, টাউনশিপ ডেভলপার্স প্রাইভেট লিমিটেড, শিশির রিয়েলিটি প্রাইভেট লিমিটেড, সানব্লিঙ্ক রিয়েল এস্টেট প্রাইভেট লিমিটেডের নাম উল্লেখ করেছে। 

সকল অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রতারণা, প্রতারণার অভিযোগে এবং দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ধারায় মামলা করা হয়েছে।

ব্যাঙ্কগুলি ২০১০ সাল থেকে অভিযুক্ত সংস্থাগুলোকে ঋণ দিয়েছিল। ২০১৯ সালে ৩৪,৬১৫ কোটি টাকার বেশি ঋণগুলিকে নন-পারফর্মিং অ্যাসেট (NPA) হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল।

ছাপিয়ে গেছে আগের সব রেকর্ড!
ডিএইচএফএল-এর এই মামলাটি এখন পর্যন্ত সিবিআইয়ের নথিভুক্ত করা সবচেয়ে বড় ব্যাঙ্কিং জালিয়াতি। সিবিআই সম্প্রতি জানতে পেরেছে যে এবিজি শিপইয়ার্ডের জালিয়াতিতে ২২,৮৪২ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। আধিকারিকরা জানিয়েছেন, সিবিআই মামলার অভিযুক্তদের জায়গায় তল্লাশি চালায়। যা মুম্বইয়ের ১২টা জায়গায় অবস্থিত।