scorecardresearch
 
 

Pradhan Mantri Bal Puraskar 2021: সম্মানিত হচ্ছেন মেদিনীপুরের সৌহার্দ্য, খুশির হাওয়া জেলা জুড়ে

'প্রধানমন্ত্রী বাল পুরস্কারে' (Pradhan Mantri Bal Puraskar 2021) সম্মানিত হতে চলেছে মেদিনীপুরের (Midnapore) ছাত্র সৌহার্দ্য দে। আর্ট এন্ড কালচার বিভাগে বেছে নেওয়া হয়েছে সৌহার্দ্যকে। গত ২২ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে ইমেল করে জানানো হয় এই সুসংবাদ। দেশের মধ্যে বেছে নেওয়া হয়েছে মোট ৩২ জনকে, তার মধ্যে পশ্চিমবঙ্গ থেকে একাই রয়েছে সৌহার্দ্য। সোমবার পশ্চিম মেদিনীপুর (West Midnapore) জেলা শাসকের দফতরে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই ছাত্র ছাত্রীদের উৎসাহিতও করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

সৌহার্দ্য দে সৌহার্দ্য দে
হাইলাইটস
  • প্রধানমন্ত্রী বাল পুরস্কার পাচ্ছে সৌহার্দ্য দে
  • আর্ট এন্ড কালচার বিভাগে নির্বাচিত সে
  • খুশি সৌহার্দ্যর বাবা মা


'প্রধানমন্ত্রী বাল পুরস্কারে' (Pradhan Mantri Bal Puraskar 2021) সম্মানিত হতে চলেছে মেদিনীপুরের (Midnapore) ছাত্র সৌহার্দ্য দে। আর্ট এন্ড কালচার বিভাগে বেছে নেওয়া হয়েছে সৌহার্দ্যকে। গত ২২ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে ইমেল করে জানানো হয় এই সুসংবাদ। দেশের মধ্যে বেছে নেওয়া হয়েছে মোট ৩২ জনকে, তার মধ্যে পশ্চিমবঙ্গ থেকে একাই রয়েছে সৌহার্দ্য। সোমবার পশ্চিম মেদিনীপুর (West Midnapore) জেলা শাসকের দফতরে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই ছাত্র ছাত্রীদের উৎসাহিতও করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। খবর ছড়িয়ে পড়তেই বিমভিন্ন জায়গা থেকে আসতে শুরু করেছে শুভেচ্ছা বার্তা। সম্মানিত করা হয়েছে জেলা শাসকের দফতর থেকেও। ছেলের সাফল্যে গর্বিত বাবা - মাও। 

বর্তমানে একাদশ শ্রেণির ছাত্র সৌহার্দ্যর বাবা ইতিহাসের অধ্যাপক মা ইতিহাসের শিক্ষিকা। তাই ইতিহাস ও নিজের দেশের ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতির ওপরে তার আকর্ষণ তৈরি হয় ছোটবেলা থেকেই। সঙ্গে ইংরেজি বই পড়াও একপ্রকার নেশা হয়ে ওঠে তার। পাশাপাশি তৈরি হয় লেখালেখির অভ্যাস। মাত্র ১৩ বছর বয়সে ইংরেজিতে 'সাইন অফ সূর্যবংশ' নামে একটি বই লিখে ফেলে সে৷ রামের রাজত্ব নিয়ে ইংরেজিতে নাট্যাকারে 'দ্য ক্রনিক্যাল অফ সূর্যবংশ' নামে আরও একটি রচনা সৃষ্টি হয় তারই কলম থেকে। এছাড়াও বিভিন্ন ইংরেজি পত্র - পত্রিকায় পুরনো মন্দির, মুঘল আমলের বিভিন্ন বিষয় নিয়েও লেখালিখি চলে তার। তবে লেখালিখি সৌহার্দ্যর অন্যতম প্রিয় বিষয় হলেও, ভবিষ্যতে অবশ্য সিভিস সার্ভিসে যোগ দেওয়াই তার লক্ষ্য।  

প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে পুরস্কৃত হচ্ছে ছেলে, স্বভাবতই চোখে মুখে খুশি ঝড়ে পড়ছে সৌহার্দ্যর বাবা মায়ের। এই বিষয়ে সৌহার্দ্যর বাবা শক্তিপ্রসাদ দে জানান, আমরা গর্বিত, ছোটবেলা থেকেই বিভিন্ন ইংরেজি লেখকের বই পড়তে ভালবাসে৷ পরে রামায়ণ মহাভরত নিয়েও চর্চা করেছে ৷ পাশাপাশি মা জয়তী দে বলেন, নিজের বিদ্যালয়ের পড়া মুখস্ত করার চেয়ে অন্য বিষয়গুলোর ওপরেই বেশি গুরুত্ব দেয় সৌহার্দ্য৷ তাই বিদ্যালয়ের পড়ার দিকে লক্ষ্য রাখতে হয় আমারেই৷ তবে ছোটোবেলা ও থেকেই লেখালিখিতে ভীষণ উৎসাহী।